এটিএম বুথের লেনদেন অর্ধেকে নেমে এসেছে

করোনাভাইরাসের কারনে মানুষ তেমন বের হয় না। তাই এটিএম বুথের লেনদেন ও হয় না। হয় না বলতে পুরো অর্ধেকে নেমে এসেছে। ওএসের গড় মাসিক লেনদেন দেড় হাজার কোটি টাকা থেকে কমে মাত্র সাড়ে ৪০০ কোটি টাকায় নেমে আসে।

এছাড়া মেশিনে টাকা জমা দেয়ার (সিআরএম) পরিমাণও কমেছে। তবে এই সময়ে ঘরে বসে কার্ড বা ইন্টারনেট ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ই-কমার্স লেনদেনের পরিমাণ বেড়েছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের প্রতিবেদনের তথ্য অনুযায়ী, ‘জানুয়ারি মাসে এটিএমে মোট এক কোটি ৮৩ লাখ ৯৯ হাজার ৯৩৭টি লেনদেন হয়েছিল। এতে ১৪ হাজার ৮২৯ কোটি টাকা উত্তোলন করা হয়। ফেব্রুয়ারি ও মার্চ মাসে যথাক্রমে ১৪ হাজার ৩২৭ ও ১৪ হাজার ৬৬২ কোটি টাকা উত্তোলন হয়। কিন্তু এপ্রিলে উত্তোলন কমে দাঁড়ায় আট হাজার ১৮৭ কোটি টাকা। লেনদেন সংখ্যাও কমে ৯৪ লাখ ৬৭ হাজার ৪১২টিতে নেমে আসে। জানা গেছে, করোনার কারণে এপ্রিল মাসে ব্যাংকগুলো কোনো এটিএম বুথ, পিওএস, সিআরএম সংখ্যা বাড়ায়নি। তবে এ সময়ে ব্যাংকের ডেবিট ও ক্রেডিট কার্ডের সংখ্যা বেড়েছে।’

অন্যদিকে এপ্রিলে সাধারণ ছুটির মধ্যেও বিভিন্ন ব্যাংকের কিছু কিছু শাখায় পরিষেবা বিল দিতে ও বেতনভাতা উত্তোলনে গ্রাহকের ভিড় দেখা যায়। যাদের এটিএম কার্ড নেই মুলত তারাই এই বেতনভাতা উত্তোলন করেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

সর্বশেষ খবর